Search
Close this search box.

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

JATIYA KABI KAZI NAZRUL ISLAM UNIVERSITY (JKKNIU ) Admission Circular Published
  • আবেদনের সময়সীমাঃ ১২ ডিসেম্বর ২০২১ থেকে ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ রাত ১১:৫৯ মিনিট পর্যন্ত।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়

২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি 

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে নিম্নবর্ণিত ইউনিটের অন্তর্ভুক্ত বিভাগসমূহে শুধুমাত্র GST (General, Science & Technology) গুচ্ছভুক্ত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকৃত ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা অনলাইন (Online) রেজিস্ট্রেশন পদ্ধতির মাধ্যমে ভর্তির জন্য দরখাস্ত করতে পারবে।

১। আবেদনের নিয়মাবলি: 

ক) আবেদন করার জন্য আবেদনকারীকে https://gstadmission.jkkniu.edu.bd/ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে নিচের তথ্য দিয়ে লগইন করতে হবে: 

i) GST ভর্তি পরীক্ষার Unit

ii) GST ভর্তি পরীক্ষার রােল নম্বর

iii) HSC পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন নম্বর 

খ) উল্লিখিত তথ্যগুলাে সঠিক হলে আবেদেনকারী তার GST ভর্তি পরীক্ষায় বিভিন্ন সাবজেক্টে প্রাপ্ত নম্বর , HSC এবং SSC তে প্রাপ্ত জিপিএ সহ একটি ড্যাশবাের্ড দেখতে পাবে।

গ) এখন ভর্তির আবেদন করার জন্য Apply Now বাটনে ক্লিক করতে হবে। এই সময় কোটা সংক্রান্ত তথ্য দেখাবে। কোটা না-থাকলে No Quota, কোটা থাকলে নির্ধারিত কোটা নির্বাচন করে পরবর্তী ধাপে যাবে।

ঘ) এই ধাপে আবেদনকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি অনুষদ এবং অনুষদে অন্তর্ভুক্ত বিভাগগুলাে দেখতে পাবে। আবেদনকারী এই বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত অনুষদ এবং বিভাগীয় আবশ্যিক শর্ত পূরণ করলে বিভাগের পাশে টিক চিহ্ন, শর্তপূরণ না করলে ক্রস দেখতে পাবে। আবেদনকারী যে অনুষদে আবেদন করতে ইচ্ছুক, সেই অনুষদের পাশের Apply বাটনে ক্লিক করে পরবর্তী ধাপে যাবে।

ঙ) এই ধাপে আবেদনকারীকে তার নির্ধারিত অনুষদের জন্য আবেদন ফি প্রদান করতে হবে। বিভিন্ন অনলাইন গেটওয়ে এবং মােবাইল ব্যাংকিং সেবা (সসানালী ব্যাংক, bKash, নগদ, UCash ইত্যাদি) এর মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দেয়া যাবে। বিস্তারিত ‘আবেদন ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি অনুচ্ছেদে পাওয়া যাবে।

চ) আবেদন ফি জমা দেওয়ার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে আবেদনকারী Application Status পেইজে আসবে। এখানে আবেদনকারী তার সকল আবেদন দেখতে পাবে এবং প্রতিটি আবেদনের ফি-জমাদানের রশিদ Download বাটনে ক্লিক করে ডাউনলােড করে সংগ্রহ করতে পারবে। 

২। আবেদন ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি: 

ক) মােবাইল ব্যাংকিং 

i) আবেদনকারীকে প্রথমে মােবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যম (bKash, নগদ, UCash) নির্বাচন করতে হবে।

ii) মােবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট নম্বর (মােবাইল নম্বর) সরবরাহ করে পরবর্তী ধাপে যেতে হবে।

iii) একাউন্ট নম্বরটি সঠিক হলে, এই ধাপে পেমেন্টকারী তার প্রদত্ত মােবাইল নম্বরে একটি OTP রিসিভ করবে। 

iv) পেইজে দেখানাে OTP বক্সে প্রাপ্ত OTP টি সরবরাহ করতে হবে এবং প্রয়ােজনীয় পিন কোড দিয়ে পেমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে।

খ) অনলাইন ব্যাংকিং 

i) অনলাইন ব্যাংকিং এর ক্ষেত্রে সােনালী ব্যাংক নির্বাচন করে আবেদনকারীকে Account Transfer অপশনটি নির্বাচন করতে হবে।

ii) একাউন্ট নম্বর, পেমেন্টকারীর নাম ও মােবাইল নম্বর সরবরাহ করে পরবর্তী ধাপে যেতে হবে।।

iii) প্রদত্ত তথ্য সঠিক হলে, এই ধাপে পেমেন্টকারী তার প্রদত্ত মােবাইল নম্বরে একটি OTP রিসিভ করবে।

iv) পেইজে দেখানাে OTP বক্সে প্রাপ্ত OTP টি সরবরাহ পেমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে। 

৩। বিভিন্ন ইউনিটের আবেদন ফি: প্রতি ইউনিটের জন্য (চার্জ ব্যতিত) ৪০০/-(চারশত) টাকা মাত্র।

৭। i) GST ভর্তি পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরের সঙ্গে এসএসসি/দাখিল/সমমান ও এইচএসসি/আলিম/সমমান পরীক্ষার ৪র্থ বিষয়সহ প্রাপ্ত জিপিএ-র সঙ্গে নিম্নলিখিত নিয়মানুযায়ী গুণ করে সর্বোচ্চ যথাক্রমে ১২ ও ১৮ নম্বর (সর্বমােট ৩০ নম্বর) যােগ হবে। জিপিএ এর ক্ষেত্রে নম্বর যােগ করার নিয়ম নিম্নরূপ: 

এসএসসি/সমমান-তে প্রাপ্ত জিপিএ ……………X2.৪ =

এইচএসসি/সমমান-তে প্রাপ্ত জিপিএ ………….X৩.৬ = 

ii) ‘ও’ লেভেল এবং এ’ লেভেল পরীক্ষায় প্রাপ্ত লেটার গ্রেডের গ্রেডপয়েন্ট অনুরূপভাবে জিপিএ হিসেবে ব্যবহার করতে হবে। 

৮। কোটায় আবেদনকারী প্রার্থীকে আবেদনের সময় অবশ্যই নির্ধারিত কোটা উল্লেখ করতে হবে। আবেদনের সময় কোটা উল্লেখ না করলে পরবর্তী সময়ে তাকে আর কোটায় বিবেচনা করার সুযােগ থাকবে না। 

ভর্তির সময় কোটায় ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের জন্য নিম্নলিখিত সনদ অবশ্যই সংগে আনতে হবে 

(ক) এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার মূল নম্বরপত্র, রেজিস্ট্রেশন কার্ড, মূল সনদপত্র, ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র।

(খ) মুক্তিযােদ্ধা কোটায় ভর্তিচ্ছুদের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক ইস্যুকৃত পিতা/মাতা, দাদা/দাদী, নানা/নানীর মুক্তিযােদ্ধার মূল সনদপত্র এবং মুক্তিবার্তা/গেজেট এর ছায়ালিপি; অন্য কোন সনদ গ্রহণযােগ্য নয়।

(গ) মুক্তিযােদ্ধার নাতি-নাতনী কোটায় ভর্তিচ্ছুদের ক্ষেত্রে পিতা-মাতার বিবাহের কাবিননামা, জাতীয় পরিচয়পত্র, সনাতন ও অন্যান্য ধর্মালম্বীদের ক্ষেত্রে পিতা-মাতার বিবাহের এফিডেভিট এবং তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র।  (ঘ) অন্যান্য কোটায় ভর্তিচ্ছুদেরকে সংশ্লিষ্ট কোটা প্রমাণের সপক্ষে মূল সনদপত্র।

  • ▣ মুক্তিযােদ্ধা কোটায় প্রক্রিয়াধীন সনদ ভর্তির জন্য বিবেচনায় আনা হবে না।
  • ▣ সনদ যাচাইঅস্তে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের ভর্তি নিশ্চিত করা হবে।
  • ▣ যুদ্ধাহত মুক্তিযােদ্ধা কোটায় ১% আসন সংরক্ষিত থাকবে। সেক্ষেত্রে সাক্ষাতকারের সময় তাদের প্রমাণপত্র নিয়ে আসতে হবে।
  • ▣ হরিজন কোটায় ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদেরকে জেলা প্রশাসক /উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কর্তৃক প্রদত্ত সনদ এবং জন্মসনদ জমা দিতে।
নিম্নলিখিত ইউনিটের অন্তর্ভুক্ত বিভাগসমূহে GST গুচ্ছভুক্ত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকৃত ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে।
২০১৭ ও ২০১৮ সালের এসএসসি/সমমান এবং ২০১৯ ও ২০২০ সালের এইচএসসি/সমমান, ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বাের্ডের অধীনে এইচএসসি (ভােকেশনাল), A লেভেল এবং অন্যান্য সমমান পরীক্ষায় সিমমান নির্ধারণ কমিটি কর্তৃক অনুমােদনক্রমে] উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরাই কেবল ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।