Search
Close this search box.

চকচক করলেই সোনা হয় না – ভাবসম্প্রসারণ

১. চকচক করলেই সোনা হয় না।

ভাব-সম্প্রসারণঃ উজ্জ্বল দেখলেই তা খাঁটি প্রমাণিত হয় না। একইভাবে বাইরের চাকচিক্য দেখে ভেতরের সত্য উপলব্ধি করা যায় না। বস্তুত অন্তরের সত্যটাই বড়,অন্তর্নিহিত বস্তুটাই সঠিক ও মূল্যবান। মানুষ স্বাভাবিকভাবেই সৌন্দর্য প্রিয়। সুন্দরকে যে পছন্দ করে। তাই সৌন্দর্যের প্রতি  আকর্ষিত হয়। যেকোনো জিনিসের বাইরের চাকচিক্য ও ঔজ্জ্বল্য তাকে মুগ্ধ করে। ফলে সে প্রতারিত হয়, হতাশা তাকে গ্রাস করে। এ কারণে যেকোনো জিনিস পরখ করে নিলে ঠকার সম্ভাবনা থাকে না। পরখ করার জন্য সময়, ধৈর্য ও দক্ষতা দরকার। আজকের দিনে চকচকে ও উজ্জ্বল জিনিসের আড়ালে ভেজালের আরম্বর থাকে। কমদামি ও নকল জিনিসকে দামি করার জন্য উজ্জ্বলতা দান করা হয়। আমাদের সমাজেও এমন অনেক লোক আছে যারা বাইরের ঠাঁট বজায় রাখে। পোশাক আশাক, চাল-চলনে কথাবার্তায় তারা যেমন চটপটে তেমনি আভিজাত্য ফুটিয়ে তোলায় দক্ষ। এরা মূলত ধান্দাবাজ, স্বার্থপর ও প্রতারক। সমাজের জন্য এরা ক্ষতিকর। বাস্তব জীবনে যেকোনো কাজে আমাদেরকে সচেতন ও সতর্ক থাকতে হবে। চকচকে জিনিসের প্রতি আকর্ষিত না হয়ে খাঁটি জিনিসটি পরখ করে নিতে হবে। কারণ চকচক করলেই সোনা হয় না।

মূলভাবঃ বাইরের চাকচিক্য ও সাজসজ্জা দেখে কোনো কিছুকে গুণসম্পন্ন বা মূল্যবান মনে করা উচিত নয়।


২. চকচক করলেই সোনা হয় না।

সম্প্রসারিত ভাব : বিশ্ব সংসারে আপাত সুন্দর অন্তঃসারশূন্য বস্তুর অভাব নেই। সর্বত্রই নকল অসার আড়ম্বরপূর্ণ বস্তু ছড়িয়ে আছে। যা সহজে চেনা কঠিন। যেমন -মাকাল ফল দেখতে সুন্দর কিন্তু ভেতরে শুধু ছাই। তাই কুহেলিকায় মুগ্ধ হয়ে অজ্ঞান মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে পড়ে এবং মানব জীবনকে তুচ্ছ করে দেয়। স্বর্ণ মূল্যবান ধাতু এটা দেখতে খুব উজ্জ্বল। তামা এবং পিতলকে ভালোভাবে ঘষামাজা করলে সোনার মতো উজ্জ্বল দেখায়। তাই বলে সেগুলো সোনার মতো দামি নয়। এ রকম আমাদের জগৎ সংসারে অনেককে বাইরের রূপ দেখে প্রকৃত রূপ মনে করা ঠিক নয়। কথায় আছে কোনো ব্যক্তির মুখে ধর্মের বুলি উচ্চারণ করলেই সে ধার্মিক হবে এমন ভাবা ঠিক নয়। অনেক সময় স্বার্থ সাধন ও গুণবান ব্যক্তির মতো অভিনয় করে। সুতরাং মিথ্যা মূল্যহীন। চক্ চকে বস্তুর প্রতি আকৃষ্ট না হয়ে রূপহীন প্রতিভাবান ব্যক্তির অন্বেষণ করাই জ্ঞানীর কাজ।

চাকচিক্য মানুষের আসল পরিচয় নয়। কেননা, চক্ চক্ করলেই তা দেখে সোনা ভাবা বুদ্ধিমানের বৈশিষ্ট্য নয়। এমন মনে করলে ব্যক্তিগত ও সমাজজীবনে দুঃখের সীমা থাকবে না।

মূলভাবঃ বাইরের চাকচিক্য ও সাজসজ্জা দেখে কোনো কিছুকে গুণসম্পন্ন বা মূল্যবান মনে করা উচিত নয়।

All that glitters is not gold

৩. চকচক করলেই সোনা হয় না।

ভাবসম্প্রসারণ: সোনা অনেক মূল্যবান একটি ধাতু। এর রং উজ্জ্বল এবং রোদের আলোয় চক চক করে। তামা এবং পিতলের রঙও উজ্জ্বল এবং চক চকে কিন্তু তারা সোনার মতো মূল্যবান নয়।

বাহ্যিক দিক, আকর্ষনীয় পোশাক-আশাক কিংবা চাকচিক্য দেখে কাউকে বিচার করা যায় না। এটা কেবলই উপরের একটা খোলস। খোলসের ভিতরে রয়েছে মানুষটির প্রকৃত পরিচয়। সে ভালো নাকি খারাপ, তার উদ্দেশ্য কেমন এসব লক্ষ রেখে একজন মানুষের গুণ বিচার করতে হয়। তানাহলে একজন খারাপ মনের মানুষও দামি জামা-কাপড় পরে অর্থ দিয়ে অনেক মূল্যবান একজন মানুষে পরিণত হবে যা সমাজের জন্য অকল্যাণ বয়ে আনবে।

চক চকে জিনিস মাত্রই সোনা নয়। দামি পোশাক-আশাকে মানুষের গুণ নিহিত থাকে না। গুণী সেই যে সৎ এবং সত্যের পথে চলে।

মূলভাবঃ বাইরের চাকচিক্য ও সাজসজ্জা দেখে কোনো কিছুকে গুণসম্পন্ন বা মূল্যবান মনে করা উচিত নয়।